Monday, 14 February 2011

রাজিয়া সুলতানার কবিতা (বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে)

            এপার ওপার (সনেট জাতীয় কবিতা)
মায়ের আদেশ আমি করি ভাল মনে
যা বলেন তাই করি তার সুখ পানে।
শত কষ্ঠ করে তিনি ফলাইছে মোরে
আমি যে আছি তার বুকের মাঝখানে।
ভালবাসেন তিনি মোরে নিস্বার্থ রূপে
মোরা যে বুঝি নাহি এই অবনীপরে।
ভাবেন সারাক্ষণ তারা কি করি পরে
জীবনটা কাটবে মোদের সুখাতরে।
বিপদ যখন আসে চারিদিক থেকে
অভয় প্রদান করেন মোর দিগকে।
ভালবাসা অশেষ রহে তাঁর হৃদয়ে
জনম জনম ভর দিতে পারে তাকে।
শেষে তবে বলি আমি খোদা দরবারে
তাঁহারে যেন পাই আমি ওই জীবনে।


এক পথচারী
আমি নিথর দাড়িয়েছিলাম
দৃষ্টির তীক্ষ্ণতা প্রখর করে
দেখেছিলাম এক পথচারীর নির্গমন।
আমার অনুভূতি,
দৃষ্টি ছোয়ার পথচারী যেন আমিই ছিলাম
আরএই পথচারীকে নির্গমনের এত আয়োজন
আমি চেয়েছিলাম এক খন্ড আলো
কিন্তু পেয়েছি আলোর প্রতিসঙ্গী
এক অন্ধকারের আবদ্ধ গুহা।
আর তা আমাকে দিয়েছিল
                                রাশি রাশি ভালবাসা।
 এক পূজনীয় ভালবাসা,
যা আমায় স্নিগ্ধ শীতল বানিয়ে দিল,
আরো দিল দৃষ্টি বন্ধ রাখার অফুরন্ত আশা।

যে আশাকে ভাবতাম কল্পনা,
সে আশা আজ বাসত্মবে হাতছানি দেয়
মেযের ভেলায় ঘুমিয়ে থাকতে ।

                                      আমি জানি,
আমার ¯^cœ, আমার ভালবাসা,
আজ সকলের স্মৃতির পাতা,
দৃষ্টি অনুভূতির এক আলোক কিরন
ভেসে আসা এক আর্তনাত
আমি বাঁচতে চাই

                          আমি সুখি,
তোমরা গড়ে দিয়েছো আমার আমার আপন ঠিকানা
সেথায় থাকি সুখের ঘোরে,
পাই এক স্নিগ্ধ শীতলতা।
আর কিছু চাইবার নেই
এই ঠিকানাই আমার পরম পাওয়া।



ভালবাসা

ভালবাসা! একাকি কল্পনার হাসি
অবিরাম বলে যাওয়া ভালবাসি ভালবাসি।
ভালবাসা! জীবনত্ম সুখের দোলা
অবিরাম ছুটে চলা ভেলা থেকে ভেলা।
ভালবাসা! হৃদয় ছোয়া তৃপ্তির কথা
অনুভব করা কিছু সুখ আর ব্যাথা।
ভালবাসা! কিছু ধরে রাখা মধুর স্মৃতি
মেনে নেয়া অহেতুক কিছু রীতি।
ভালবাসা! হৃদয়ে অনাবিল সুখের গতি
পারি দেয়া বহুদুর তরুছায়া বীথি।
ভালবাসা! দূর্বার বেগে প্রকাশিত সাহস
গোমড়া মুখে রাশি রাশি হাসির বিকাশ।
ভালবাসা! কিছু সময়ে লাজুকলতা
আর দোল দেয়া কিছু গাছের পাতা।
ভালবাসা! মান অভিমানে চোখের জল
হাসতে শেখা সাথে ছল ছল
ভালবাসা! বুকের মাঝে শিহরন ছোয়া
ছিনিয়ে নেয়া ¯^‡M©i সব দোয়া।
ভালবাসা! দুটি হৃদয়ে মিলনের আকুলতা
আর ছুটে চলা ভেঙ্গে সব বাধা।
ভালবাসা! ¯^‡M©i মাঝে সোনার নাম
সব ছেড়ে তারে করে প্রনাম।
ভালবাসা! নিরবে নাম ধরে ডাকা
ছুটে চলা পথ আঁকা আর বাঁকা।
ভালবাসা! গড়ে তোলে তার নিজের ভুবন
আর খুজে নেয় আপনের চেয়েও আপন
ভালবাসা! জুড়ে থাকা সমসত্ম নিরাবতা
অবিরল বলে যাওয়া কিছু কথা।
ভালবাসা! দিগন্তের সব কষ্ট আপন করা
সুখের আশায় দুচোখ ¯^cœ ভরা।
ভালবাসা! এক উত্তেজিত মোহনা
আর একাকি কিছু পাওয়ার বেদনা।
ভালবাসা! দুর্দান্ত জয়ের বাঁচতে শেখা
¯^cœ আর বাস্তবের হৃদয় মাখা।
ভালবাসা! কাছ থেকে খুব কাছে পাওয়া
সুখের রাজ্যে ¯^‡M© ভেসে যাওয়া।
ভালবাসা! কিছু মুহূর্তে বেদনার জল
নিরূপায় হয়ে নির্বিকার চোখ ছলছল।
ভালবাসা! কিছু মানুষের ধিক্কার
সুখে আর দুঃখে ভেসে চলা স্রোত।
ভালবাসা! বিচ্ছিন্ন হওয়া কিছু বাঁধন থেকে
আশ্রয় নেয়া কিছু পথ বেকে।
ভালবাসা! চোখ বন্ধ করে দীর্ঘশ্বাস
গড়ে উঠা কিছু কষ্ঠের আবাস।
ভালবাসা! বাঁধা নিয়ে কিছু দৃষ্টি রেখা
আর ভেসে উঠা কিছু স্মৃতি মাখা।
ভালবাসা! কিছু ¯^v‡_© হিংস্র থাবা
জলনত্ম দুটি প্রদ্বীপ নেভা।
ভালবাসা! তবুও দুটি হৃদয়ের চাওয়া
মরনের আগে আপন করে পাওয়া।
                            



Pageviews last month